৩৫ বছরেও উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি পাথরাইলের বান্দাবাড়ী সড়কে!!!

নিজস্ব প্রতিবেদক : টাঙ্গাইল সদরের সাত কিলোমিটার দক্ষিণ আর টাঙ্গাইল-নাগরপুর-আরিচা আঞ্চলিক মহাসড়ক থেকে মাত্র পাঁচশ’ মিটার দূরে অবস্থিত গ্রামটির নাম বান্দাবাড়ী।

গ্রামের মধ্যে দিয়ে চলে গেছে এই এলাকার বাসিন্দাদের এক মাত্র চলাচলের কাঁচা রাস্তাটি।

গ্রামের ১১০টি ঘরের ৪১৩ জন লোকের চলাচলের রাস্তাও এটি। নেই কোন প্রাথমিক বিদ্যালয় ও গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্র।

নির্মাণের পর ৩৫ বছর চলে গেলেও কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি গ্রামের একমাত্র ও প্রধান এই রাস্তাটিতে।

পাথরাইল ইউনিয়নের ৬ নং ওয়ার্ডের এই গ্রামটির নাম ইউনিয়ন বোর্ডে লেখা আছে বান্দাবাড়ী। ওই পর্যন্তই অস্তিত্ব এই গ্রামের।

নির্বাচন আসে, নির্বাচন যায়; সরকার আসে, সরকার যায়। কিন্তুপ্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়িতে সীমাবদ্ধ এই এলাকার মানুষের ভাগ্য।

বান্দাবাড়ী গ্রামবাসীদের আজো কাঁচা রাস্তায় চলাচল করতে হয়। পাশের ইউনিয়নের গ্রামগুলোর রাস্তাঘাটের অনেক উন্নয়ন হলেও, উন্নয়ন বঞ্চিত রয়ে গেছে এই গ্রাম।

ভূক্তভোগীদের কথা –

গ্রামের প্রবীণ বাসিন্দা মো. গঞ্জের আলী বলেন, গ্রামের এক মাত্র কাঁচা রাস্তাটির সর্বশেষ উন্নয়ন হযেছিল ১৯৮৬ সালে।

তৎকালীন চেয়ারম্যান মো. আয়েত আলী খান বর্তমান চলাচলের একমাত্র রাস্তাটি নির্মাণ করেছিলেন।

তারপর আর কোন উন্নয়নের ছোঁয়া লাগেনি এই রাস্তার ভাগ্যে।

তিনি আরো বলেন, তার জীবদ্দশায় কাঁচা রাস্তাটির উন্নয়ন দেখে যেতে পারবো কিনা তার যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

পাথরাইল ইউনিয়নের দক্ষিন-পশ্চিম সর্বশেষ অংশে গ্রামটির অবস্থান হওয়ায় নির্বাচন ব্যতীত কোন জনপ্রতিনিধি গ্রামে আসে না।

তিনি এখন আর কোন জনপ্রতিনিধিকে গ্রামের উন্নয়নের বিষয়ে অনুরোধ করেন না।

একই গ্রামের গৃহবধু ছালমা বেগম বলেন, তার এই গ্রামে বিবাহ হয়েছে প্রায় ১৪ বছর।

নববধূ হিসেবে গ্রামে এসে যে অবস্থা দেখেছেন, ১৪ বছর পরও একই অবস্থা রয়েছে।

আর বৃষ্টির দিনে এই গ্রামে কেউ আসতে চায় না। সে সময় কোন অসুস্থ মানুষকে এই রাস্তা দিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়াও প্রায় অসম্ভব হয়ে পরে।

আরো পড়ুন – কালিহাতীর গোপালদিঘী বিদ্যালয়ে চুরি নিয়ে সভাপতির লুকোচুরি

এই গ্রামের তরুন যুবক মো. সাদ্দাম হোসেন বলেন, গ্রামের উন্নয়নে কোন চেয়ারম্যান কিম্বা মেম্বার এখন পর্যন্ত নজর দেয়নি।

এমনকি স্থানীয় সাংসদ এই গ্রামের কোন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেননি।

জনপ্রতিনিধিদের কথা –

স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য মো. আবুল কাশেম বলেন, তিনি সদ্য নির্বাচিত। তবে তিনি বান্দাবাড়ী গ্রাম ও রাস্তার বেহাল অবস্থার কথা শুনেছেন।

গ্রামটি ইউনিয়নের শেষ প্রান্তে হওয়ায় দীর্ঘ দিন হল উন্নয়ন বঞ্চিত। তিনি চেষ্টা করবেন যত দ্রুত সম্ভব রাস্তাঘাটসহ গ্রামের উন্নয়ন করার।

পাথরাইল ইউনিয়ন পরিষদের নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান রাম প্রসাদ সরকার জানান, গ্রামটি আসলেই উন্নয়নবঞ্চিত।

দীর্ঘদিন হল গ্রামের মানুষের চলাচলের একমাত্র রাস্তার কোন উন্নয়ন হয়নি। বর্ষাকালে এই গ্রামের মানুষের চলাচল খুবই কষ্টকর হয়ে যায়।

তিনি আরো জানান, আমি নির্বাচিত হয়েই বান্দাবাড়ী গ্রামের রাস্তা পাঁকা করার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি।

ইতোমধ্যে গ্রামের এক কিলোমিটার কাঁচা সড়কটির স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় (এলজিইডি) বিভাগ থেকে পরিমাপ করে নিয়ে গেছে।

আশা করি খুব দ্রুতই রাস্তার কাজ শুরু করা হবে। এছাড়া ইউনিয়ন পরিষদ থেকে বান্দাবাড়ী গ্রামের উন্নয়নে সব ধরনের পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। সম্পাদনা – অলক কুমার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *